Select your city
Search



I was fascinated by the test ride - Benelli TnT 150 user Hasan Ferdous
2018-06-26 Views: 2789
Owned for 0-3months   []   Ridden for 0-1000km


This user provides ratings about this bike


  9 out of 10
Design
Comfort & Control
Fuel Efficient
Service Experience
Value for money

টেস্ট রাইডে মুগ্ধ হয়ে বাইকটি কিনি - বেনেলি টিএনটি ব্যবহারকারী হাসান ফেরদৌস



Benelli-TnT-150-user-review-by-Hasan-Ferdous

বাংলাদেশের রাস্তার অবস্থার উপর ভিত্তি করে দিন দিন দুই চাকার বাহনগুলো অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। যারা পাবলিক যোগাযোগ মাধ্যম পছন্দ করেন না তাদের জন্য মোটরসাইকেল অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ একটি বাহন। বিশেষ করে ঢাকা শহরের মতো অসহনীয় জ্যাম এড়ানোর জন্য মোটরসাইকেলের বিকল্প নেই বললেই চলে। অনেকেই মোটরসাইকেলে চেপে অফিসে বা বাচ্চাদের স্কুলে যাতায়াত করে এতে অনেকাংশেই সময় বেঁচে যায়। আমিও ঠিক সেটাই করি। পাবলিক ট্রান্সপোর্টের অপেক্ষায় না থেকে যে কোন জায়গায় বাইক নিয়ে অনায়াসেই যাতায়াত করি। আমি যাতায়াতের জন্য পূর্বে ব্যবহার করতাম কিওয়ে আরকেএস ১২৫ কিন্তু গত কিছু দিন যাবত ব্যবহার করছি এস্কেপ মেশিন নামে পরিচিত এবং বহুল আকাঙ্ক্ষিত একটি বাইক বেনেলী টিএনটি। এটা আমার জীবনের ব্যবহৃত দ্বিতীয় বাইক। আজকে আমি বেনেলী টিএনটি নিয়ে আপনাদের সাথে এর প্রথম রাইডিং অভিজ্ঞতা তুলে ধরবো।

বেনেলী বাইক কেন কিনলাম ?
টেস্ট রাইড দিয়ে এই বাইকের ব্রেকিং, এক্সেলেরেশন, সাসপেনশন দেখে প্রেমে পড়ে যাই। আর মনে মনে বাইক পরিবর্তনের চিন্তাও করছিলাম। এইটা চালিয়ে যতটা ভালো লেগেছে বাইক শো তে হোন্ডা হরনেট ও রোডমাস্টার রেপিডো চালিয়ে ওতটা ভালো লাগে নি। তাই সব দিক চিন্তা ভাবনা করে এই বাইকটা কিনে ফেলি।

বেনেলীর ইঞ্জিনের পারফরমেন্স
যেহেতু নতুন বাইক ব্রেক ইন পিরিয়ডে আছি তাই ইঞ্জিনের বিষয়টা খুব ভালোভাবে আঁচ করতে পারিনি। আমি ৫ গিয়ারে ৫.৫ আরপিএম এ ৭০ এর মত স্পীডে তুলেছি। কোন ভাইব্রেশন পাইনি এবং বেশি আরপিএম এ আরও স্মুথ হয়ে যায়।

ডিজাইন
পৃথিবী খ্যাত সেরা ডিজাইনের মধ্যে বেনেলীর বাইকের ভালো পজিশন রয়েছে। ১৫০ সিসির এই বাইকটির ডিজাইন অসাধারণ। আমার নেকেড বাইক আগে থেকেই পছন্দ তাই এই বাইকের ডিজাইন দেখে প্রথমেই ভালো লেগে যায়। আমার কাছে ডিজাইন সব দিক থেকে একদম পারফেক্ট লেগেছে।

বিল্ড কোয়ালিটি
যেহেতু আগে এই বাইক বাংলাদেশে আসে নি তাই বিল্ড কোয়ালিটি নিয়ে একটু সন্দিহান ছিলাম। টেস্ট রাইড দেওয়ার সময় এবং পরবর্তীতে তাদের শো-রুমে দিয়ে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখি। ট্যাংকি ও সাইড কীট প্লাস্টিকের হলেও এর বিল্ড এক কথায় অসাধারণ এবং দেখেই প্রিমিয়াম কোয়ালিটি বলে মনে হয়।

সিটিং পজিশন
সিটিং পজিশন এগ্রেসিভ না তাই লং রাইড বা বেশিক্ষন রাইডে কোমর ব্যাথা বা অন্য কোন শারীরিক সমস্যার সম্মুখীন হবে না। কমিউটার ও স্পোর্টস বাইকের মাঝামাঝি সিটিং পজিশন যে কোন রাইডে অনেক ভালো সাপোর্ট দিবে।

হ্যান্ডেলবার
অন্যান্য স্পোর্টস বাইকের মত নিচু না । সিটি কমিউটিং এর জন্য আদর্শ।

সুইচ
সুইচগুলো আপাতত ভালোই আছে কিছু দিন ব্যবহার করার পর আরও ভালো বোঝা যাবে।

হেডল্যাম্প
বাইকের হেডল্যাম্পের আলো আমার কাছে খুবই ভালো লেগেছে। লো বিমে সুন্দর ফোকাসড আলো পাওয়া যায়। হাই বিমে চালানো হয়নি তবে টেস্ট করে ভালোই লেগেছে। আর হেডল্যাম্পের আলো থ্রটলের সাথে সম্পর্কিত না হওয়ার ফলে যে কোন গতিতেই ভালো ভাবেই দেখা যায়। এই বাইকের হেডল্যাম্প এলিডি না হওয়ায় হাইওয়েতে নিশ্চিত সমস্যা পড়তে হবে। কেউ যদি রাতে ভ্রমন করে তাহলে আমার পরামর্শ থাকবে যে অবশ্যই এলিডি ভালো মানের লাইট লাগিয়ে নেওয়া।

গতি
যেহেতু ব্রেক ইন পিরিয়ডে আছি তাই সেভাবে স্পীড দেখা হয়নি। প্রাথমিকভাবে চালিয়ে ধারনা করা যায় অনায়সে ১২০ কিমি/ঘন্টা সম্ভব।

ব্রেক
ব্রেকিং এ আমি বাংলাদেশের নন –এবিএস বাইকের পরেই রাখব। পেছনের ১৩০ সাইজের টায়ার ও সিবিএস ব্রেকিং এর ফলে যে কোন স্পীডে আত্মবিশ্বাসের সাথে ব্রেকিং করা যায় যেটা আমি অন্য বাইকে পাইনি।

সাসপেনশন
সামনে ইনভার্টেড ফরক ব্যবহার করা হয়েছে যা সব চাইতে ভালো। আর পেছনের মনোশক যথেষ্ট নরম ও আরামদায়ক। আমার আশংকা ছিলো অন্যান্য বাইকের মত প্রথম অবস্থায় মনোশক হার্ড থাকবে কিন্তু এমন কিছু হয় নি। শুরু থেকেই পেছনের সাসপেনশন খুবই নরম।

টায়ার
সামনে ১০০ এবং পেছনের ১৩০ সাইজের টায়ার ভালো গ্রিপ দেয়। আমি এই স্বল্প সময়ে গ্রিপ নিয়ে কোন সমস্যায় পড়িনি।

মাইলেজ
এখন মাইলেজ ঠিকঠাক ভাবে বুঝতে পারছি না। আরও কিছু দিন পর ধারণা পাওয়া যাবে। তবে ৪০ এর বেশি পাচ্ছি মনে হচ্ছে যা ব্রেক ইন পিরিয়ডের পর আরও বেড়ে যাবে।

সার্ভিস সেন্টার
সার্ভিস সেন্টারের মান নিয়ে স্পীডোজ সব সময় সচেতন। তবে সাম্প্রতিক সময়ে বাইকের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় সার্বিক সার্ভিস মান নিচে নেমে গিয়েছে। তবে তাদের টপ ম্যানেজমেন্ট এটা স্বীকার করে আগামী ৩ মাসের মধ্যেই সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন।

দাম
বেনেলী বাইরের দেশে একটি প্রিমিয়াম বাইক কোম্পানী এবং কোয়ালিটি ও পারফরমেন্স অনুযায়ী দাম একেবারেই হাতের নাগালের মধ্যেই বলা চলে। বাইকটি ইন্ডিয়াতে রিলিজ হবে কিছু দিনের মধ্যে এবং সেখানে এক্সপেক্টেড প্রাইস ১ লাখ রুপি। সে তুলনায় এ দেশে ১ লক্ষ ৮০ হাজার যুক্তিযুক্ত।

ভালো দিক
-অসাধারণ ব্রেকিং
-খুব ভালো কন্ট্রোলিং
-আরামদায়ক সাসপেনশন

মন্দ দিক
-ফুল ডিজিটাল মিটার হওয়া স্বত্বেও কোন ঘড়ি নাই যা আমার জন্য অনেক উপকারী ছিলো।
-কোন ক্রাশ গার্ড নাই তাই সাইড কিট নিয়ে একটু সাবধানে থাকতে হয়।
-বাইকে মুছার কাপড় রাখার কোন জায়গা নাই তবে সাইড কিটে রাখা যায় অবশ্য।
-স্পোর্টস বাইক হওয়ায় পেছনের সিট উঁচু। একারণে বাইকটি দেখতে সুন্দর লাগলেও পিলিয়ন( বিশেষ করে মহিলা) হলে আরাম ফিল নাও হতে পারে।

এই বাইক যারা কিনবেন তাদের কাছে আমার পরামর্শ
বাইকটি কেনার আগে অবশ্যই টেস্ট রাইড দিবেন। আপনার টাকা, আপনার সিদ্ধান্ত। শুধুমাত্র রিভিউ এর উপর নির্ভর করবেন না আবার আশেপাশের মানুষের কথায় সিদ্ধান্ত নিবেন না । তবে এই দামে এরকম কোয়ালিটির বাইক বাংলাদেশে আর নেই। আপনি টাকা থাকলেই যে অন্য বাইক কিনবেন সেটা না, বরং টেস্ট রাইড দিয়ে সিদ্ধান্ত নিন। আশা করি নিরাশ হবেন না।






Rate This Review

Is this review helpful?

Rate count: 18
Ratings:
Rate 1
Rate 2
Rate 3
Rate 4
Rate 5


More reviews on Benelli TNT 150
    6 Reviews found
  • বেনেলি টিএনটি ১৫০ মোটরসাইকেল রিভিউ - মাহমুদুল হাসান শাওন
    2018-07-11
    সবাইকে শুভেচ্ছা। আমি শাওন এবং পেশায় এক চাকুরীজীবি। অনেকদিন ধরে আমি আমার Benelli TNT 150cc 2018 Version. এর রিভিউ লিখতে চাচ্ছিলাম। তাই এবার ১ হাজার কিলোমিটার চালানোর একটা Short রিভিউ আপনাদের সামনে তুলে ধরব। Benelli TNT 150cc 2018 Version কেনার আগে Honda MTX 50cc, Honda xl185cc Hero Honda Hunk 150cc, Yamaha R15 v1,Pulser 150cc,Yamaha Fzs v1 & Freedom Voyger 125cc ব্যবহার করতাম। ২০১৮ সালের ২৬ জুন আমি এই বাইকটি ক...
    English Bangla
  • বেনেলি টিএনটি ১৫০ ফার্ষ্ট রাইড রিভিউ - রাহাত
    2018-07-09
    বাইক চালানোর হাতে খড়ি বলতে গেলে একদিন দুষ্টুমি করে বন্ধুর Apache RTR ১ গিয়ারে চালাতে পারলে শিখার শখ জাগে। পরবর্তিতে অল্পকিছু টাকা জমিয়ে পুরান একটি Honda CD 100cc বাইক কিনে নিয়ে হাত পাকাপোক্ত করে নিই।যেহেতু যে বাইকটি দিয়ে চালানো শিখি সেটা ছিল কিন্তু এইটা দিয়ে কখনো মেইন রোডে চালাইনি। সো, বলতে গেলে Benelli TNT 150ই আমার প্রথম ব...
    English Bangla
  • টেস্ট রাইডে মুগ্ধ হয়ে বাইকটি কিনি - বেনেলি টিএনটি ব্যবহারকারী হাসান ফেরদৌস
    2018-06-26
    বাংলাদেশের রাস্তার অবস্থার উপর ভিত্তি করে দিন দিন দুই চাকার বাহনগুলো অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। যারা পাবলিক যোগাযোগ মাধ্যম পছন্দ করেন না তাদের জন্য মোটরসাইকেল অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ একটি বাহন। বিশেষ করে ঢাকা শহরের মতো অসহনীয় জ্যাম এড়ানোর জন্য মোটরসাইকেলের বিকল্প নেই বললেই চলে। অনেকেই মোটরসাইকেলে চে...
    English Bangla
  • বেনেলি টিএনটি ১৫০ ফার্ষ্ট রাইড রিভিউ - রিয়াল রহমান
    2018-06-24
    বাইক মানুষের শখের একটি বাহন।কথায় আছে শখের দাম লাখ টাকা। বাইকের দাম যতই লক্ষ টাকা হোক না কেন মানুষ তার শখের বসে সেই বাইকটি কিনবে। একটু লক্ষ্য করলে আমরা দেখতে পারি যে আমাদের দেশে ইন্ডিয়ার থেকে বাইকের দাম তুলনামূলক বেশি। আমাদের দেশে এমন অনেক বাইক আছে যেগুলোর দাম প্রায় ৫ লক্ষ টাকারও অধিক। তবুও সেই বাইকগু...
    English Bangla
  • বেনেলি টিএনটি ১৫০ ফার্ষ্ট রাইড রিভিউ - ফাহিম আদনান
    2018-06-14
    বেনলি টিএনটি রিভিউ দিতে চলে আসলাম... আজকে কিনছি.. আজকেই রিভিউ.... কারো কারো দরকার রিভিউ... আবার কেউ কেউ বিরক্ত হবেন... যাইহোক শুরু করে দেই রিভিউ.. রাইডার সিটিং পজিশন অসাম... কিউইয়ে RKS বাইকে বসে যেমন শান্তি পাওয়া যায় না... rks দেখবেন সামনের দিক নিচু.. যেকারনে আপনি নিচের দিকে ধাবমান হবেন... আপনার দুই পা চলে যাবে সামনের কম ...
    English Bangla
  • বেনেলি টিএনটি ১৫০ ফীচার রিভিউ
    2018-06-10
    বেনেলি হচ্ছে ইউরোপিয়ান জনপ্রিয় কিছু পুরাতন মোটরসাইকেল ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে অন্যতম। ১৯১১ সাল থেকে তারা মোটরসাইকেল উৎপাদন শুরু করে। ৭৫ সিসি থেকে শুরু করে হাই সিসি সুপার বাইকগুলো তারা তৈরি করে থাকে। এসকল সেগমেন্টের মধ্যে TNT অর্থাৎ ( Tornado Naked Tre) অন্যতম জনপ্রিয়। বাংলাদেশের গ্রাহকদের চাহিদা অভিরুচি এবং সিস...
    English Bangla



Filter
Brand
CC
Mileage
Price

Advance Search
Motorcycle Brands in Bangladesh

View more Brands