কখন ইঞ্জিন অয়েল পরিবর্তন করবেন

2021-10-31 Views: 1033

কখন ইঞ্জিন অয়েল পরিবর্তন করবেন


changing period-1635665058.jpg

ইঞ্জিনের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি ও দীর্ঘস্থায়ী করতে ইঞ্জিন অয়েল বা লুব্রিকেন্ট এর ভুমিকা অনেক। ইঞ্জিনের প্রতিটি পার্টস এর মাঝে ঘর্ষনের ফলে ক্ষুদ্র কনাগুলো ক্ষয় হয়। সেই ক্ষয় রোধ করতে ও পার্টস গুলো বেশি সচল রাখতে বাইকে ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করা হয়। শুধু তাই নয়, ইঞ্জিন ঠান্ডা রাখতেও ইঞ্জিন অয়েল এর ভুমিকা অনেক। ইঞ্জিন অয়েল এর মান এর উপর ভিত্তি করে এর ৩ টি ভাগ রয়েছে।

ইঞ্জিন অয়েলের ধরন গুলো হলোঃ-
১। মিনারেল ইঞ্জিন অয়েল।

২।সিন্থেটিক ইঞ্জিন অয়েল।

৩। সেমি সিন্থেটিক ইঞ্জিন অয়েল।

ইঞ্জিনে থাকা পার্টস থেকে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কনা ক্ষয় হয়ে ইঞ্জিন ওয়েলের সাথে মিশে যায়, এছারাও অনেক দিন যাবত ইঞ্জিনের মধ্যে থাকা ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহারের ফলে এর পুরুত্ব কমে যায়। তখন সেই ইঞ্জিন অ পরিবর্তনের প্রয়োজন পড়ে। আসুন আমরা জেনে নেই কোন ইঞ্জিন অয়েল কত দিন পর পর পরিবর্তন করা দরকার।

মিনারেল ইঞ্জিন অয়েলের ক্ষেত্রেঃ
মিনারেল ইঞ্জিন অয়েল সাধারন অপরিশোধিত ইঞ্জিন অয়েল। এই লুব্রিকেন্ট সরাসরি খনি থেকে তুলে বাজারজাত করা হয়। তাই এর কণা গুলো অসমান হয় ও খুব দ্রুত পাতলা হয়ে পড়ে। যদি আপনি 10W-30 /40 গ্রেডের ইঞ্জিন অয়েল ব্যাবহার করে থাকেন তাহলে ৮০০-৯০০ কিমি এর মধ্যে পরিবর্তন করা অবশ্যক। তবে আপনি যদি 20W-50 ব্যাবহার করেন তবে আপনি সর্বোচ্চ ১০০০ কিমি পর্যন্ত রাইড করতে পারবেন।

সিন্থেটিক ইঞ্জিন অয়েলঃ
সিন্থেটিক ইঞ্জিন অয়েল হলো শতভাগ পরিশধিত ইঞ্জিন অয়েল। খনি থেকে তুলে ল্যাব্রটরিতে পরিক্ষা নিরিক্ষার পর এটিকে পরিশধনের করে বাজারজাত করা হয়। সিন্থেটিক অয়েলের ক্ষুদ্র কনা গুলো সমান হয় ও এর পুরুত্ব অনেক বেশি থাকে তাই দীর্ঘস্থায়ী হয় বেশি। এছাড়াও সিনথেটিক ইঞ্জিন অয়েল শতভাগ পরিশধিত হওয়ায় ইঞ্জিনের জন্য অনেক উপকারী। কোম্পানি নিজেরা নিজেদের মতো দাবি করে তবে আমরা জানি যে সিনথেটিক অয়েল নিলে একটানা ৩০০০-৫০০০ কিমি পর্যন্ত রাইড করা সম্ভব তবে এর বেশি নয়।

সেমি সিনথেটিক ইঞ্জিন অয়েলঃ
সেমি সিনথেটিক ইঞ্জিন অয়েল হলো সিনথেটিক ও মিনারেল এর সংমিশ্রনে তৈরী। সেমি সিনথেটিকে ২০ শতাংশ সিনথেটিক ও ৮০ শতাংশ মিনারেল এর ব্যবহার রয়েছে। সিনথেটিক অয়েল এর মিশ্রন থাকায় মিনারেলের তুলনায় সেমিসিনথেটি অয়েল মান ও গুনে মিনারেলের তুলনায় ভালো এবং দীর্ঘস্থায়ী ও হয় বেশি। সেমি সিনথেটিক অয়েল ব্যবহারে আপনি ১৫০০-১৮০০ কিমি পর্যন্ত আপনার বাইক চালাতে পারবেন যা আপনার জন্য উত্তম হবে। আপনি চাইলে ২০০০ কিমি পর্যন্ত যেতে পারেন তবে এর আগেই অয়েল ড্রেন দেওয়া উত্তম হবে।

বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ড এর অনেক ভালো ভালো ইঞ্জিন ব্র্যন্ড রয়েছে। তবে আপনাদের আপনার বাইকের রিকোমান্ডেড ইঞ্জিন অয়েলটি ব্যবহার করার এবং ইঞ্জিনের পারফর্মেন্স বৃদ্ধির জন্য সঠিক সময়ের মধ্যেই ইঞ্জিন অয়েল পরবর্তন করার পরামর্শ থাকলো।
Rate This Tips

Is this tips helpful?

Rate 1
Rate 2
Rate 3
Rate 4
Rate 5

Oil Tips

ইঞ্জিন ওয়েল ড্রেন দেয়ার সময় কেন কম ওয়েল পাওয়া যায়?
2022-09-13

ইঞ্জিন ওয়েল একটি বাইকের জন্য নিত্য প্রয়োজনীয় ও অতি জরুরী একটি পণ্য, এটি ইঞ্জিনের ভিতরের সকল পার্টসকে লুব্রিকেট ...

Bangla English
কখন ব্রেক ওয়েল পরিবর্তন করবেন
2022-09-07

ব্রেক ওয়েল একটি বাইকের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং সাধারন একটি লুব্রিকেন্ট যা মুলত বাইকের ব্রেক এর জন্য ব্যবহার...

Bangla English
বাইকের সাসপেনশন অয়েল নিয়ে বিস্তারিত তথ্য
2022-08-14

সাসপেনশন অয়েল একটি বাইকের সাধারন লুব্রিকেন্ট এর মধ্যে অন্যতম এবং খুবই গুরুত্বপূর্ণ লুব্রিকেন্ট, সাসপেনশন বাই...

Bangla English
ইঞ্জিন অয়েল কিনার সময় কি কি খেয়াল করবেন?
2022-08-06

একটি বাইকের জন্য ইঞ্জিন অয়েল খুবই গুরুত্বপূর্ণ উপাদান, তবে আমাদের মধ্যে অনেকেই ইঞ্জিন অয়েল কিনার সময় গাফিলতি ক...

Bangla English
চেইন লুব না গেয়ার অয়েল? কোনটি ভালো।
2022-06-30

ইঞ্জিনের মতোই, আমাদের বাইকের আরও কিছু অংশ রয়েছে যা লুব্রিকেট করতে হবে, যেমন, বিয়ারিং এবং ড্রাইভ চেইন যা আমাদের ...

Bangla English